আজ রবিবার, ১৪ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ৩০শে আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ৮ই মহর্‌রম, ১৪৪৬ হিজরি
আজ রবিবার, ১৪ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ৩০শে আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ৮ই মহর্‌রম, ১৪৪৬ হিজরি

ভারত-ইংল্যান্ড ম্যাচে বৃষ্টির শঙ্কা, খেলা না হলে ফাইনালে যাবে কে?

চলমান টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে বার বার হানা দিয়েছে বৃষ্টি। শঙ্কা রয়েছে সেমিফাইনালে নিয়েও। এমন পরিস্থিতিতে ভারত ক্রিকেটের সমর্থক আর খোদ ভারতীয় দলের খেলোয়াড়রাই হয়ত এখন গায়ানার আকশের দিকে তাকিয়ে থাকবেন। সঙ্গে এই প্রার্থনাও করবেন, গায়ানায় দ্বিতীয় সেমিফাইনাল ম্যাচটাই যেন বৃষ্টিতে ভেসে যায়। কারণটাও খুব স্বাভাবিক, এই ম্যাচ বৃষ্টিতে ভেসে গেলেই যে ফাইনালে চলে যাবে ভারত। যেখানে এরইমাঝে নিজেদের জায়গা নিশ্চিত করে রেখেছে দক্ষিণ আফ্রিকা।

এবারের বিশ্বকাপের প্লেয়িং কন্ডিশন অনুযায়ী, শুধুমাত্র প্রথম সেমিফাইনাল ও ফাইনালের জন্য একদিন করে রিজার্ভ ডে বরাদ্দ ছিল। আর দ্বিতীয় সেমিফাইনালের জন্য অতিরিক্ত সময় রাখা হয়েছে ২৫০ মিনিট। দ্বিতীয় সেমিফাইনালেও যদি রিজার্ভ ডে রাখা হতো, তাহলে সেটি গড়াবে ২৮ জুন রাত ৮টা ৩০ মিনিটে। রিজার্ভ ডে-তে গড়ালে এই ম্যাচে যে দল জিতবে, তাদের ২৯ তারিখ ব্রিজটাউনে পৌঁছেই ফাইনালে মাঠে নেমে পড়তে হবে। কিন্তু আইসিসি ২৮ জুন ট্রাভেল ডে হিসেবে চিহ্নিত করে ২৯ জুন ফাইনাল আয়োজনের পক্ষে। আর এই ক্ষেত্রে সুপার এইটে যারা এগিয়ে ছিল, তাদেরকেই ফাইনালে দেখা যাবে।
গায়ানার আবহাওয়া অবশ্য এখন ইঙ্গিত দিচ্ছে সেদিকেই। আজ বৃহস্পতিবারসহ আগামী কদিন সেখানে প্রবল বৃষ্টির পূর্বাভাস দেয়া হয়েছে। গত ২৫ এবং ২৬ জুন সেখানে ব্যাপক বৃষ্টিপাত হয়েছে। ২৭ তারিখেও বৃষ্টির কথা উল্লেখ করা হয়েছে। পূর্বাভাস বলছে, ‘সকালে বৃষ্টি এবং বিকেলে বজ্রপাতসহ বৃষ্টির সম্ভাবনা থাকছে। বাতাস ঘণ্টায় ১০ থেকে ১৫ মাইল বেগে বইতে পারে। বৃষ্টির সম্ভাবনা ৭০ শতাংশের বেশি।’

আবহাওয়ার পূর্বাভাস বিষয়ক ওয়েবসাইট ‘অ্যাকু ওয়েদার’ বলছে, ভারত ও ইংল্যান্ডের মধ্যে সেমিফাইনাল ম্যাচ শুরুর আগে বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। এই ম্যাচটি শুরু হবে স্থানীয় সময় সকাল ১০টায় এবং তার আগে বৃষ্টির বেশ সম্ভাবনা রয়েছে গায়ানায়। যেখানে বৃষ্টির সম্ভাবনা ৩৫ থেকে ৬৮ শতাংশ থাকতে পারে।

বৃষ্টির কারণে খেলায় বিঘ্ন সৃষ্টি হলে ফলাফলের জন্য প্রতিটি দলকে ন্যূনতম অন্তত ৫ ওভার করে খেলতে হয়। যা বিশ্বকাপের গ্রুপপর্ব ও সুপার এইট রাউন্ডে বাস্তবায়ন করা হয়েছিল। তবে সেমিফাইনাল ও ফাইনালের জন্য সেটি হবে ১০ ওভারে। অর্থাৎ বৃষ্টি বাগড়া দিলেও টুর্নামেন্টের চূড়ান্ত ম্যাচ তিনটিতে ন্যূনতম ১০ ওভারের খেলা সম্পন্ন হতে হবে। নির্দিষ্ট ওভারের খেলা সম্পন্ন হলে জয়-পরাজয় নির্ধারণ করা হবে ডিএলএস পদ্ধতিতে।

যদি সমস্ত প্রচেষ্টার পরেও ম্যাচটি না হয় এবং শেষ পর্যন্ত আম্পায়াররা ম্যাচ বাতিল করার সিদ্ধান্ত নেন, তাহলে এমন পরিস্থিতিতে ভারতীয় দল সুবিধা পাবে। ম্যাচ না খেলেই ফাইনালে পৌঁছে যাবে রোহিতের দল। কারণ ম্যাচ না হলে আগের রাউন্ডের পয়েন্ট হিসাব করা হবে। ভারত সুপার এইট খেলেছে এক নম্বর গ্রুপ থেকে। যেখানে তিনটি ম্যাচ জিতেই শীর্ষে ছিলেন রোহিত-কোহলিরা, আর ইংল্যান্ড সুপার এইটে দুই নম্বর গ্রুপ থেকে দ্বিতীয় হয়ে সেমিতে ওঠে।

আইসিসির নিয়ম অনুযায়ী, সেমিফাইনাল বাতিল হলে সুপার এইটের শীর্ষে থাকা দল সরাসরি ফাইনালে ওঠে যাবে।

সংবাদটি লাইক, কমেন্ট ও শেয়ার করুন