আজ রবিবার, ২১শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ৬ই শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৫ই মহর্‌রম, ১৪৪৬ হিজরি
আজ রবিবার, ২১শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ৬ই শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৫ই মহর্‌রম, ১৪৪৬ হিজরি

বাঁধাহীন যাত্রাপথ,পোরোচ্ছে ৭থেকে আট মিনিটে

সোমবার সকালে জাজিরার নাওডোবা প্রান্তে কোন যানবাহনের জট নেই। ব্যক্তিগত গাড়ি,যাত্রীবাহী বাস,পন্যবাহী ট্রাক টোল দিয়েই বাঁধাহীন ভাবে সেতু পার হতে পারছে।
গতকাল সেতুতে মটরসাইকেলের আধিক্য থাকায় অন্যান্য যানবাহন চলচলে বিরম্ভনা সৃষ্টি হয়। সেতুতে মটর সাইকেল দুর্ঘটনায় দুই তরুনের মৃত্যুর পর সেতু বিভাগ পদ্মা সেতুতে সাময়িক মটরসাইকেল চলাচল বন্ধ ঘোষনা করেছে। সোমবার সকাল থেকে কোন মটর সাইকেল পদ্মা সেতুতে উঠতে দেয়া হচ্ছে না।
সেতু বিভাগের কর্মকর্তারা জানান,রোববার সকাল ৬টায় যখন পদ্মা সেতুর দুই প্রান্ত থেকে যানবাহন ছেরে দেয়া হয় তখন টোল দিয়ে হুরমুর করে সেতুতে ওঠে মটর সাইকেল। সারাদিনই মটর সাইকেল সেতু পারাপার হয়েছে। বিকাল ৪টার পর থেকে জাজিরা প্রান্তের টোলপ্লাজার সামনে কয়েক হাজার মটর সাইকেল জরো হয়। তারা টোলপ্লাজার ছয়টি বুথের সামনে ডুকে পরে। এ কারনে অন্যান্য যানবাহন সেতুতে উঠতে সমস্যা হয়। সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টা পর্যন্ত পাঁচটি বুথ দিয়ে মটর সাইকেল ও একটি বুথ দিয়ে অনান্যা যানবাহন সেতুতে ওঠে। এ কারনে টোলপ্লাজার সামন হতে সংযোগ সড়কে অন্তত দুই কিলোমিটার যানজট সুষ্টি হয়। পরে রাত ৮টা থেকে দুটি বুথ দিয়ে মটর সাইকেল ও চারটি বুথ দিয়ে অন্যান্য যানবাহন প্রবেশ করে সেতুতে।
পদ্মা সেতুতে ঘুরতে আসা মানুষদের অধিকাংশই মটর সাইকেল নিয়ে এসেছিলেন। তারা জাজিরা প্রান্ত থেকে মাওয়া প্রান্তে গিয়ে আবার জাজিরা প্রান্তে এসেছেন। যাওয়া আসার সময় তারা সেতুতে নেমে সময় কাটিয়েছেন,হেটেছেন। অনেকে হেলমেট না পরে দুইজন-তিনজন নিয়ে সেতু পারাপার হয়েছেন। রাতে মটর সাইকেল দুর্ঘটনায় দুই তরুন আহত হন। তাদের ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হলে রাত সাড়ে ১০টার দিকে মারা যান।
ওই দুর্ঘটনার পরই সেতু বিভাগ পদ্মা সেতুতে মটর সাইকেল চলাচল বন্ধের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে। রোববার রাতে মন্ত্রী পরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম সেতু বিভাগ,সেতুর নিরাপত্তা সংশ্লিষ্টদের নিয়ে জাজিরার সার্ভিস এড়িয়া ২ এ সভা করেন। সেতুতে নিরাপদে যানবাহন চলাচল,নিরাপত্তা জোরদার করার বিষয় দিকনির্দেশনা প্রদান করেন।
গোপালগঞ্জ-ঢাকাগামী টুঙ্গীপাড়া এক্সপ্রেসের চালক দেলোয়ার হোসেন সকাল সাড়ে ৯টায় প্রথম আলোকে বলেন,ভাঙ্গা এক্সপ্রেসওয়ে থেকে রওনা হয়ে টোলপ্লাজার সামনে ব্রেক করে টোল দিয়ে সেতুতে উঠলাম। তিনি ১০ মিনিট পরে এ প্রতিবেদককে ফোন করে জানান,তিনি ৮ মিনিটে পদ্মা সেতু পেরিয়ে মাওয়া প্রান্তের টোলপ্লাজায় পৌচেছেন।

বরিশালের আগৈলঝাড়ার বাসিন্দা সাফায়েত হোসেন বলেন,পরিবারের সদস্যদের নিয়ে গতকাল গাড়ি চালিয়ে পদ্মা সেতু পেরিয়েছি। সেতু ও সড়কে মটর সাইকেল অনেক সমস্য সৃষ্টি করেছে। তাদের জন্য সেতু অতিক্রম করতে বেগ পেতে হয়েছে। রাতে গ্রামে ছিলাম আজ ঢাকায় ফিরে যাচ্ছি,কোন যানজট ও বিশৃখলা নেই।
জাজিরা প্রান্তের টোল ব্যবস্থাপক কামাল হোসেন বলেন, সোমবার সকাল থেকে কোন মটর সাইকেল সেতুতে ওঠার জন্য আসেনি। প্রাইভেটকার,যাত্রীবাহি বাস ও পন্যবাহী ট্রাক পারারপার হচ্ছে। আজ জারিরা প্রান্তে কোন গাড়ির জট নেই।

সংবাদটি লাইক, কমেন্ট ও শেয়ার করুন