আজ রবিবার, ২১শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ৬ই শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৫ই মহর্‌রম, ১৪৪৬ হিজরি
আজ রবিবার, ২১শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ৬ই শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৫ই মহর্‌রম, ১৪৪৬ হিজরি

জাজিরায় তিন পুলিশ এক শিশু ও এক নারীসহ তিনজন গুলিবিদ্ধ

শরীয়তপুরের জাজিরা উপজেলার বিলাসপুর ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ডে বিজয় মিছিলকে কেন্দ্র ধাওয়া-পালটা ধাওয়া ইটপাটকেল নিক্ষেপ ও বোমা বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। এ সময় মিছিল গুলিতে এক শিশু ও এক নারীসহ তিনজন গুলিবিদ্ধ হন। এ ঘটনায় ৭ জন আহত হয়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। বুধবার বিকাল ৬টায় এ ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শী নাঈমুর রহমান নাঈম ও নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সহকারী প্রিসাইডিং কর্মকর্তা সূত্রে জানা গেছে, জাজিরা উপজেলা বিলাসপুর ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ডে সকাল থেকেই শান্তিপূর্ণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এতে সাধারণ সদস্য পদ প্রার্থী জাহাঙ্গীর হোসেন খান (মোরগ) ও একই ওয়ার্ডে মতি শিকদার (ফুটবর) প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। ভোট শেষে সাধারণ সদস্য পদ প্রার্থী জাহাঙ্গীর হোসেন খান (মোরগ) প্রতীকে বিজয় লাভ করেন।

এ সময় জাহাঙ্গীর হোসেন খানের সমর্থকরা একটি বিজয় মিছিল বের করলে প্রতিপক্ষের মতি শিকদারের সমর্থকরা দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে তাদের ওপর হামলা চালানোর অভিযোগ উঠে। এ সময় দুই গ্রুপের মধ্যে অস্ত্রশস্ত্রসহ লাঠিসোটা নিয়ে সংঘর্ষ বেধে যায়। এরপর তাদের মধ্যে ধাওয়া-পালটা ধাওয়া চলতে থাকে। একপর্যায়ে ককটেলের বিস্ফোরণ ঘটলে পুলিশ তাদের নিয়ন্ত্রণে আনতে ফাকা গুলি ছুড়ে।

এ সময় পুলিশের গুলিতে স্থানীয় রফিকুল ইসলামের স্ত্রী রুবিনা আক্তার (৩৬), তাদের মেয়ে লামিছা (২) ও মোতাহার আলীর ছেলে ইমরান (২৮) নামে ৩ জন গুলিবিদ্ধ হন। এ সময় দেশীয় অস্ত্র ও ইটপাটকেলের আঘাতে আতাউর রহমান (২৬), মিজানুর রহমান (৩৮), সাঈদ মিয়া (৪০), রমিজ খা (৩৮), আবদুর রাজ্জাক (৪০) গুরুতর আহত হন। এছাড়া

আহত ৩ জনকে উদ্ধার করে জাজিরা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে আহতদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়। তাদের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাৎক্ষণিক ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠিয়ে দেওয়া হয়। এ ঘটনার পর এলাকায় থমথমে অবস্থা বিরাজ করলেও এখন পরিস্থিতি অনেকটা শান্ত ।

জাজিরা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, আমরা খবর পেয়ে সঙ্গে সঙ্গে ঘটনাস্থলে যাই।এ ঘটনায় তিন জনের গুলিবিদ্ধ হওয়ার খবর পাই কিন্তু কি ভাবে গুলিবিদ্ধ হয়েছে তা জানা নাই। সেখান থেকে নির্বাচনী কেন্দ্রে দায়িত্বরত সবাইকে নিরাপদে সরিয়ে নিয়ে আসি। এতে পুলিশের ৩সদস্য আহত হয়েছে। এব্যাপারে প্রিসাইডিং দেলোয়ার হোসেন কর্মকর্তা বাদী হয়ে অজ্ঞাত ৬০/৭০ জনের নামে মামলা হয়েছে।কাউকে গ্রেফতার করতে পারিনি।

সংবাদটি লাইক, কমেন্ট ও শেয়ার করুন